মোস্তাক আহাম্মেদ শান্ত পেলেন “রকফেলার ফাউন্ডেশ স্কলারশিপ”

0

বিশ্বের নামিদামি মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চশিক্ষা নেয়ার স্বপ্ন কার না থাকে ¿? ঠিক তেমনি স্বপ্নছিলো ময়মনসিংহের মুক্তাগাছার মেধাবী শিক্ষার্থী মোস্তাক আহাম্মেদ শান্তর ৷৷ এশিয়ার সেরা স্কলারশিপ “রকফেলার ফাউন্ডেশ স্কলারশিপ” নিয়ে চায়না থ্রি গরজেস বিশ্ববিদ্যালয়ে এমবিবিএস পড়তে যাচ্ছে মোস্তাক আহাম্মেদ শান্ত ৷৷ ২০১৬ সালে শহীদ স্মৃতি সরকারি কলেজ, মুক্তাগাছা থেকে এইচএসসি পাস করার পর অনেক আশা ছিলো সরকারি মেডিকেল কলেজে ভর্তি হবে ৷৷ কিন্তু তার চিকিৎসক হওয়ার যে স্বপ্ন ছোটবেলা থেকেই ছিল, সেটা ধূলিসাত হয়ে গিয়েছিল মাত্র এক ঘণ্টার ভর্তি পরীক্ষায় ৷৷ “মোস্তাক” সরকারি মেডিকেলে চান্স পায় নি ৷৷ তারপর জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স পেয়ে মোস্তাক ভর্তি হয় জার্নালিজম এন্ড মিডিয়া স্টাডিজ ডিপাটমেন্টে ৷৷ কিন্তু সেখানে পড়তে তার মন সায় দেয় নি ৷৷ কারণ তার স্বপ্নই তো ছিলো ডাক্তার হবে ৷৷ এই প্রফেশনে গিয়ে মানুষকে সর্বোচ্চ পর্যায়ে সাহায্য করতে চান ৷৷ তাই “মোস্তাক” সিদ্ধান্ত নেয় দেশের বাইরে মেডিকেলে পড়ালেখা করবে ৷৷ ইন্টারনেটে অনেক খোঁজাখুঁজির পর মোস্তাক জানলেন, চীনের সরকারি মেডিকেল ভার্সিটিতে স্কলারশিপে এমবিবিএস পড়া যায় ৷৷ খুব বেশিদিন লাগল না ৪ মাসের মাথাতেই চীনে একটা স্কলারশীপ পেয়ে গেল মোস্তাক ৷৷ স্কলারশিপের ব্যাপারে মোস্তাক আহাম্মেদ শান্ত বলেন, আমি “রকফেলার ফাউন্ডেশ স্কলারশীপ” সম্পর্কে জানতে পারি ইন্টারনেটে ৷৷ তবে প্রথমে খুব একটা আগ্রহি ছিলাম না ৷৷ ভেবেছিলাম স্কলারশিপ পাবো না ৷৷ তবু আব্বুর পিরা-পিরিতে ফরমটা পূরণ করা হলো ৷৷ পরীক্ষার তারিখ হলো ৷৷ তরপর ঢাকায় চায়না এম্বাসীতে এসে অনলাইনে চায়না থ্রি গরজেস বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষা দিলাম ৷৷ যখন রেজাল্ট দিল তখন বুঝলাম পরীক্ষায় সফলতার সাথে উত্তির্ন হয়েছি ৷৷ তারপর স্কাইপে ভাইবাতেও টিকলাম ৷৷ অতঃপর Confirmation Mail এ জানালো Congratulation you are upgraded into the Main List. Confirmation as a Scholarship Holder. মোস্তাক আহাম্মেদ শান্ত আরো বলেন, ভাবতে খুবই ভাল লাগছে যে আমি স্কলারশিপে মেডিকেলে পড়তে যাচ্ছি ৷৷ আর বেশী দিন বা‌কি নেই, সেই সাদা এপ্রো‌নের স্বপ্নটা হাতছা‌নি দি‌য়ে ডাক‌ছে ৷৷ স্কলারশিপের বিষয়ে “মোস্তাক আহাম্মেদ শান্ত” কে প্রশ্ন করা হলে মোস্তাক বলেন, চীনে প্রচুর স্কলারশিপ পাওয়া যায় পড়াশুনার জন্য ৷৷ এমবিবিএস এর জন্য স্কলারশিপ পাওয়া একটু কঠিন ৷৷ কারণ, অন্যান্য বিষয়ে সকল বাংলাদেশিদের স্কলারশিপ দেওয়া হলেও এমবিবিএসে সবাইকে দেওয়া হয় না ৷৷ চীনে জন্য সরকারের স্কলারশিপ ডাটাবেজে যোগাযোগ করে শিক্ষার্থীদেরকেই সুযোগ নিতে হবে ৷৷ সরকারের স্কলারশিপ ছাড়াও রোটারি ইন্টারন্যশনাল, বিশ্বব্যাংক, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক, জাতিসংঘ, রকফেলার ফাউন্ডেশনসহ বিভিন্ন সংস্থার বৃত্তির জন্য এসোসিয়েশন অব কমনওয়েলথ ইউনিভার্সিটিজ-এর ওয়েবসাইটে পরামর্শ পাওয়া যায় ৷৷ এছাড়াও এমবিবিএস পড়ার পর চীনে এমডিও (Doctor of medicine) করা যায় ৷৷ এমডি করার জন্য অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ে স্কলারশিপ পাওয়া যায় ৷৷ অর্থাৎ বিনা খরচে পড়া যায় ৷৷ মোস্তাক আহাম্মেদ আরোও বলেন, আসুন, উচ্চশিক্ষা নিয়ে সবাই মিলে একটি শিক্ষিত ও সুন্দর সোনার বাংলা গড়ে তুলি ৷৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here