পুরুষ নির্যাতন: চক্ষুলজ্জায় গোপন রাখেন অধিকাংশ পুরুষ!

Male Torture in Bangladesh

প্রতিদিন সকালে পত্রিকার পাতা খুললেই ধর্ষণসহ বিভিন্ন ধরনের নারী নির্যাতনের খবর চোখে পড়ে। সংসারে শুধু নারীরা যে নির্যাতন ও হয়রানির শিকার হচ্ছেন তা নয়; নির্যাতনের খাতায় এখন নাম উঠেছে পুরুষদেরও। তবে পুরুষদের অভিযোগের পাল্লা ভারী না হওয়ার বিষয়টি তেমনভাবে প্রকাশ্যে আসছে না। তাই এর প্রতিকারও মিলছে না। তবে পুরুষরা ঘরেই বেশি নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। আর বাইরে বিভিন্নভাবে নারীদের দ্বারা পুরুষরা বিপাকে পড়ছেন।

পুরুষ নির্যাতন প্রতিরোধ আন্দোলন নামের একটি সংগঠন বলছে, সমাজে অনেক পুরুষই বউয়ের যন্ত্রণায় নীরবে কাঁদেন। লোকচক্ষুর আড়ালে গিয়ে চোখ মোছেন কিন্তু দেখার কেউ নাই। এছাড়া ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারের ডিসি ফরিদা ইয়াসমিনও জানিয়েছেন এমন কথা।

পুরুষ নির্যাতন প্রতিরোধ আন্দোলনের সভাপতি শেখ খায়রুল আলম সম্প্রতি এক অনুষ্ঠানে বলেন, অনেক পুরুষ বউয়ের যন্ত্রণায় নীরবে কাঁদেন, পুরুষদের বিষয়টি দেখার কেউ নেই। বিষয়টি হয়তো হাস্যরসের সৃষ্টি করছে। কিন্তু বিষয়টি প্রচারে না এলেও সত্য। অনেক পুরুষ চক্ষুলজ্জায় বিষয়টি গোপন রাখেন। ফলে এর প্রতিকার মিলছে না।

তিনি বলেন, সংসারে কোনো সমস্যা হলেই অহেতুক যৌতুক ও নারী নির্যাতনের মামলা দেয় নারীরা। শুধু বাড়িতেই নয়, ঘরের বাইরেও নানাভাবে নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন পুরুষরা। পুরুষরা তাদের আত্মসম্মানের জন্যই লুকিয়ে কাঁদেন। নারী নির্যাতন প্রতিরোধে অনেক আইন থাকলেও পুরুষ নির্যাতন রোধে কোনো আইন নেই।

এ বিষয়ে ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারের ডিসি ফরিদা ইয়াসমিন বলেন, বেশিরভাগ পুরুষরা ঘরেই নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। আবার অনেক সময় দেখা যাচ্ছে অনেক উচ্চবিত্ত লোকেরা খারাপ মেয়েদের ট্যাপে পড়ে যাচ্ছে। তবে নির্যাতিত পুরুষদের সংখ্যা ৫ শতাংশের বেশি হবে না।

তিনি বলেন, আমার কাজের অভিজ্ঞতা থেকে আমি দেখেছি, সংসারে কোনো সমস্যা হলেই অহেতুক যৌতুকের মামলা দেয়া হয়। আর নারী স্বামীর বিরুদ্ধে যেভাবে আমাদের কাছে অভিযোগ দেন কিন্তু এক্ষেত্রে পুরুষরা অনেক সহনশীল।

পুরুষ নির্যাতন প্রতিরোধ আন্দোলনের সভাপতি শেখ খায়রুল আলম ও ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারের ডিসি ফরিদা ইয়াসমিন আলোচনায় উল্লেখ করেছেন কীভাবে নির্যাতিত হন পুরুষরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*