শেষ পর্যন্ত নিষিদ্ধই হলেন স্মিথ, ওয়ার্নার ও ব্যানক্রফট

বল টেম্পারিংয়ের ঘটনায় নিষিদ্ধ হয়েছেন অস্ট্রেলীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক স্টিভ স্মিথ, সহ-অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নার এবং ক্যামেরন ব্যানক্রফট। কেপটাউন টেস্টের ঘটনায় তাদের নিষিদ্ধের কথা জানিয়েছেন অস্ট্রেলীয় ক্রিকেট বোর্ডের চিফ এগজিকিউটিভ অফিসার জেমস সাদারল্যান্ড। তবে এই তিন ক্রিকেটারকে কতদিনের জন্য ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া নিষিদ্ধ করবে তা জানা যাবে বুধবার।

বল ট্যাম্পারিংয়ের ঘটনায় এরইমধ্যে নিজেদের পদ ছাড়তে হয় স্মিথ ও ওয়ার্নারকে। এছাড়া আইসিসি স্মিথকে এক টেস্ট নিষিদ্ধসহ ম্যাচ ফির পুরোটা জরিমানা করেছে। আর ব্যানক্রফটের ম্যাচ ফির ৭৫ শতাংশ জরিমানা করেছে আইসিসি। পাশাপাশি ৩টি ডিমেরিট পয়েন্ট দেয়া হয়েছে তাকে।

স্মিথদের এ কাণ্ডে দারুণভাবে হতাশ ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া তদন্ত করতে একটি প্রতিনিধি দল পাঠায় দক্ষিণ আফ্রিকায়। সেই প্রতিনিধি দলই তদন্ত শেষে নিষিদ্ধ করেছে তিন ক্রিকেটারকে। এ তিন ক্রিকেটারকে নিষিদ্ধ করলেও দলের আর কেউ এ ঘটনায় যুক্ত নয় বলে জানিয়েছেন সাদারল্যান্ড।

যদিও স্মিথের দাবি, দলীয় সিদ্ধান্তে এটি করা হয়েছে।

এ ঘটনায় অস্ট্রেলিয়া কোচ ড্যারেন লেহম্যানের ভবিষ্যৎ নিয়েও সংশয় দেখা দিয়েছিল। তবে তিনি দায়িত্ব চালিয়ে যেতে পারবেন। সিএপ্রধান জানান, চুক্তি মোতাবেক কাজ করে যাবেন লেহম্যান। তাতে কোনো সমস্যা নেই।

বিষয়টি নিয়ে আলোড়ন সৃষ্টি হয় গোটা ক্রিকেট দুনিয়ায়। বল টেম্পারিংয়ের স্বীকারোক্তির পর অস্ট্রেলীয় সরকার স্মিথকে অধিনায়কত্বের পদ থেকে সরিয়ে দিতে বলে এবং নেতৃত্ব থেকে সরে দাঁড়াতে হয় স্মিথ ও সহ-অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নারকে।

এদিকে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট বোর্ডের আগেই ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থা আইসিসি এ ঘটনায় একটি টেস্ট থেকে স্মিথকে নিষিদ্ধ করেছে। এছাড়া তার ম্যাচ ফির শতভাগ জরিমানা করা হয়। ব্যানক্রফটকে নিষিদ্ধ করা না হলেও ম্যাচ ফির ৭৫ শতাংশ জরিমানা করা হয়।

তবে অস্ট্রেলিাং ক্রিকেট বোর্ডের এ নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে আপিল দকরতে পারবেন স্মিথ-ওয়ার্নার ও ব্যানক্রফট।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*