ঢাবির সুফিয়া কামাল হলে মধ্যরাতে যা ঘটেছিলে

মঙ্গলবার দিবাগত রাতে ঢাবির (ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়) বেগম সুফিয়া কামাল হলের বাসিন্দা ও উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী মোর্শেদা খাতুন নামে এক শিক্ষার্থীকে মারধর করার খবর পাওয়া গেছে।

আহত মোর্শেদাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

মারধরের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে। ওই ছবি দেখে ফজলুল হক হল, শহীদুল্লাহ হল থেকে সাধারণ শিক্ষার্থীরা ওই হলের সামনে উপস্থিত হয়।

এ ঘটনায় ওই হলের সাধারণ শিক্ষার্থীরাও প্রতিরোধ গড়ে তোলেন। এ সময় বেগম সুফিয়া কামাল হলের ছাত্রলীগের সভাপতি ইসরাত জাহান এশাকে তারা অবরুদ্ধ করে রাখেন।

পরে তাকে এশাকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করা হয়। সাধারণ শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার ঘটনায় এর আগে তাকে হল ও ছাত্রলীগ থেকেও বহিষ্কার করা হয়।

ঢাবি প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম গোলাম রব্বানী মঙ্গলবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে তাকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মঙ্গলবার গভীর রাতে কবি সুফিয়া কামাল হলে সাধারণ ছাত্রীদের ওপর হামলার ঘটনায় হল প্রশাসন তাৎক্ষণিকভাবে এশাকে হল থেকে বহিষ্কার করেন।

অপরদিকে ছাত্রলীগ সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এশাকে সংগঠন থেকেও বহিষ্কার করা হয়।

ছাত্রলীগের হামলায় মাঝরাতে ঢাবিতে কোটা আন্দোলনরত ১০ ছাত্রী রক্তাক্ত
ঢাবি: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসির সামনে আন্দোলনকারী ছাত্রীদের ওপর হামলা চালিয়েছে ছাত্রলীগ। এসময় ছাত্রলীগ কর্মীদের ছোঁড়া ইটের আঘাতে ১০ জন ছাত্রী আহত হয়েছেন।

সোমবার প্রথম প্রহরের (রাত আড়াইটা) দিকে এই ঘটনা ঘটে।

রাত দেড়টার দিকে ছাত্রীদের একটি মিছিল ক্যাম্পাসের বিভিন্ন সড়ক ঘুরে টিএসসির সামনে অবস্থান নিয়ে কোটা পদ্ধতি সংস্কার চেয়ে স্লোগান দিতে থাকেন।

একপর্যায়ে রাত আড়াইটার দিকে রাজু ভাস্কর্যের সামনে অবস্থান নেয়া ছাত্রলীগ কর্মীরা ছাত্রীদের লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছোঁড়ে। এসময় ইটের আঘাতে ১০ ছাত্রী রক্তাক্ত হন। তবে তাৎক্ষণিকভাবে তাদের নাম জানা যায়নি। আহতের সংখ্যা আরো বড়তে পারে বলে জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি।

এর আগে, কোটা পদ্ধতি সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলোচনা করতে চায় সরকার, রাত দেড়টার দিকে ঢাবি ক্যাম্পাসে গিয়ে এমনটা জানিয়েছেন আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক। সেইসাথে আটককৃত শিক্ষার্থীদের মুক্তি দেয়া হবে বলেও তিনি জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*