১৬৮ টেস্টে রান সংখ্যা ১০ হাজার নয়শ’র বেশি। ১৯৮৫ সালে অভিষেকের পর ২০০৪ সাল পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়ার হয়ে ব্যাট হাতে ৩১টি শতক ও ৫০টি অর্ধ শতক করেছেন স্টিভ ওয়াহ। ওয়ানডে ক্রিকেট ব্যাপক জনপ্রিয় হয়ে উঠলেও টেস্টকে সবচেয়ে রাজকীয় ফরম্যাট প্রমাণে ব্যস্ত ছিলেন পুরো ক্যারিয়ার জুড়েই। সাদা পোশাকে ১৯ বছরের যাত্রায় শেষ পর্যন্ত অভিষেক হওয়া সেই ব্যাগি গ্রিন ক্যাপটিই রেখে দিয়েছেন। এই ক্যাপের সম্মান যে ক্রিকেটের সবার উপরের সারিতে। সেটি বারবার মনে করিয়ে দিয়েছেন তিনি।
অস্ট্রেলিয়ান কিংবদন্তি ক্রিকেটকে বিদায় জানানের পরের বছর টেস্ট ক্যাপ মাথায় দেন মুশফিকুর রহিম। খেলার ধরনে দুইজনের সঙ্গে নেই কোনও মিল। তবু তামিম ইকবাল স্টিভ ওয়াহের সঙ্গে বন্ধু মুশফিকের নাম জুড়িয়ে দিয়েছেন। তা অবশ্য সেই ক্যাপের জন্যই।
বছরের পর বছর রঙ উঠা ওই ক্যাপটি পরেই কাটিয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার সাবেক অধিনায়ক। ক্যাপের সামনের অংশটা ছেড়াও ছিল। মুশফিকের ক্যাপটাও অনেক ওমনি।
শনিবার রাতে তামিমের লাইভ পর্ব শেষ হয়েছে। উপস্থিত ছিলেন মাশরাফি, মুশফিক মাহমুদুল্লাহ। ক্রিকেট ও মাঠের বাইরের নানা প্রশ্নের মধ্যে একটি প্রশ্ন ছিল মুশফিকের টেস্ট ক্যাপ নিয়ে।
একটু মজা করেই তামিম বলেন, ‘মুশফিকের ক্যাপ দেখে মনে হয় স্টিভ ওয়াহ থেকেও বেশি টেস্ট খেলেছে ‘
জবাবে মুশফিক বলেন, ‘দেশের হয়ে টেস্ট খেলতে পারাটা অনেক সম্মানের। স্টিভ ওয়াহর ধারে কাছেও যেতে পারিনি। ছোট থেকে দেখেছি বড় মাপের খেলোয়াড়রা সব সময় টেস্ট ক্যাপটা যত্ন করে রাখত। যদিও বড় মাপের হতে পারিনি। আমার ইচ্ছা ছিল এটা আগলে রাখা।’
এসময় মাশরাফি বিন মুর্তজা বলেন, ‘আমরা নিজেদের বড় করতে জানি না, তুমি অনেক বড় খেলোয়াড়।’
১৫ বছরের ক্যারিয়ারে ৭০ টেস্টে ৪ হাজার ৪১৩ রান করেছেন মুশফিক। ২১টি অর্ধশতক, সাতটি শতক রয়েছে তার নামের পাশে। ক্রিকেটের ইতিহাসের একমাত্র উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান হিসেবে দুটি দ্বিশতকের মালিক মুশফিকই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here